Home » SMM » Facebook » সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ও সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কৌশল।
সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ও সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কৌশল।

বিশ্বের অর্ধেক জনসংখ্যার প্রতিদিন প্রায় তিন ঘন্টা সামাজিক নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে, তাই গ্রাহকদের সাথে যোগাযোগের জন্য

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সেরা উপায়। আপনার ব্র্যান্ডটি গ্রাহকদের কাছে জনপ্রিয় করে তুলতেও SMM খুবই উপযোগী। এটি

আপনাকে আরও বিশ্বাসযোগ্য হতে সহায়তা করে। আবার আপনি SMM এর সাহায্যে অন্য উপায়ে আয় করতে পারেন। চলুন

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং জেনে আসা যাকঃ

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং :

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং হচ্ছে সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করে কোনো পণ্য ও সেবা বিপণনের প্রক্রিয়া। সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম

ব্যবহার করে ব্র্যান্ডের প্রচার, বিক্রয় বৃদ্ধি ও গ্রাহক বৃদ্ধি করার প্রক্রিয়াকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলা হয়।

আপনার পণ্য ও সেবা প্রচার করার জন্য বা ব্র্যান্ড awareness বাড়ানোর জন্য আপনি গ্রাহকদের আগ্রহী করতে এবং তাদের সাথে

সংযোগ স্থাপন করতে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে পারেন। গ্রাহকদের সোশ্যাল মিডিয়াতে সংযুক্ত করতে হলে আপনাকে

অবশ্যই সোশ্যাল মিডিয়াতে ভালো প্রোডাক্ট বা সার্ভিস প্রকাশ করতে হবে এবং ফলাফলগুলো নিখুঁতভাবে বিশ্লেষণ করতে হবে।

বর্তমানে প্রধান সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলো হলঃ

  • ফেসবুক
  • ইনস্টাগ্রাম
  • টুইটার
  • লিংকডইন
  • পিন্টারেস্ট
  • ইউটিউব এবং
  • স্ন্যাপচ্যাট।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কেন গুরুত্বপূর্ণ

বিপুল সংখ্যক গ্রাহকের কাছে পৌঁছানোর সহজতম উপায় হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। আজকাল বিশ্বব্যাপী প্রায় ৩.৮

বিলিয়ন মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। তদুপরি, এই সংখ্যাটি ক্রমাগত বেড়ে চলেছে।

এজন্যই ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস বাড়াতে সোশ্যাল মিডিয়া অত্যন্ত কার্যকর। জনসাধারণ প্রথম অনলাইন ব্র্যান্ডগুলোর সম্পর্কে

সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই পরিচিত হয়ে থাকে। সোশ্যাল মিডিয়া শুধু আপনার audience এর কাছে পৌঁছানোর জন্যই নয় বরং

তাদের সাথে দীর্ঘ সময় যোগাযোগ করার এক দুর্দান্ত উপায় এবং এটি বিক্রয় বাড়ানোর ক্ষেত্রেও কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর সুবিধাঃ

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে হলে কৌশল এবং সৃজনশীলতা উভয় প্রয়োজন। এটা ব্যবহার করে আমরা কি কি সুবিধা পেতে

পারি সেই সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস বৃদ্ধিঃ

সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদের মধ্যে বেশির ভাগ ব্যবহারকারীরাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে

পণ্য গবেষণা করেন। সুতরাং, ব্যবহারকারীদের সামাজিক মাধ্যমগুলোর প্রতি আগ্রহের সুযোগ নিয়ে যে কোন প্রতিষ্ঠান তাদের

ব্র্যান্ডের প্রচার করে থাকে। বিভিন্ন সামাজিক প্ল্যাটফর্মে পণ্যের মার্কেটিং এর মাধ্যমে ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস বৃদ্ধি করা খুবই সহজ।

তবে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে হবে, যেমনঃ আপনার পণ্য ও সেবার মান ভালো থাকতে হবে এবং গ্রাহকের সাথে ভালো সম্পর্ক

বজায় রাখার জন্য আপনাকে গ্রাহকের কাছে বিশ্বস্ত হয়ে উঠতে হবে। আপনি যদি আপনার গ্রাহকের বিশ্বাস অর্জন করতে

পারেন আপনার ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

ওয়েবসাইট ট্র্যাফিক বৃদ্ধিঃ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এখন ওয়েব ট্র্যাফিক বাড়ানোর এক দুর্দান্ত উপায়। সোশ্যাল মিডিয়া

মার্কেটিং এর মাধ্যমে ব্যবসায়ের ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস বৃদ্ধি ও পণ্য বিক্রয়ের পাশাপাশি আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিকও বৃদ্ধি

করতে পারেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টের মাধ্যমে পণ্যের মার্কেটিং করা হয় বা বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। মনে করুন, আপনি একটি

পণ্যের বিজ্ঞাপন দিলেন কিন্তু পণ্যটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার ও কেনার জন্য আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করতে হবে। আপনি

পণ্যের বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি ওয়েবসাইটের লিঙ্কটি দিলে গ্রাহক আপনার ওয়েবসাইটে পৌঁছে যাবে এবং আপনার ওয়েব ট্রাফিক

বাড়বে।

দ্রুত এবং সহজে audience এর কাছে কন্টেন্ট পৌঁছানো:

আপনি যদি কোন কন্টেন্টের মাধ্যমে আপনার ব্যবসায়ের প্রচার করেন তবে আপনি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর মাধ্যমে

আপনার কন্টেন্টটি আরও দ্রুত ও কার্যকরভাবে সবার কাছে পৌঁছে দিতে পারেন। লোকেরা সবসময় দরকারী, উত্তেজনাপূর্ণ এবং

বিনোদনমূলক তথ্য তাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে। আর ধীরে ধীরে এটি অনেকের কাছে পৌঁছে যায় এবং আপনার টার্গেট

audience বেড়ে যায়। SMM এর মাধ্যমে আপনার গ্রাহকদের বিশেষ অফার সম্পর্কে অবহিত করতে পারেন। সোশ্যাল

নেটওয়ার্কগুলি দ্রুতগতিতে বিক্রয় এবং সস্তায় তথ্য সরবরাহ করতে সহায়তা করে। বেশিরভাগ ব্যবহারকারী ইমেলের মাধ্যমে

প্রচারমূলক বার্তা পেতে পছন্দ করেন।

টার্গেট অডিয়েন্সদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগঃ

SMM অন্য যে কোনও marketing চ্যানেলের চেয়ে বেশি আপনাকে গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া জানাতে সহায়তা করে।

পর্যালোচনা, পছন্দ, মন্তব্য ইত্যাদির মাধ্যমে আপনার পণ্যটি সম্পর্কে ক্লায়েন্টদের প্রতিক্রিয়া জানতে পারবেন।ইমেল বা

এসএমএস এর চেয়ে সামাজিক নেটওয়ার্কগুলির মাধ্যমে খুব দ্রুত আপনি গ্রাহকের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জানতে পারবেন।এটি

সঠিকভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে এবং এই নির্দিষ্ট ক্লায়েন্টকে ধরে রাখতে এবং অন্যকে আকৃষ্ট করতে সহায়তা করে।

শিল্প, বাজার ও প্রতিযোগীদের পর্যবেক্ষণঃ

সোশ্যাল মিডিয়া আপনাকে কেবল আপনার গ্রাহকের সন্তুষ্টিই নয় সম্প্রতি সময়ের শিল্পের প্রবণতা এবং আপনার প্রতিযোগীদের

ক্রিয়াকলাপ পর্যবেক্ষণ করার একটি দুর্দান্ত সুযোগ করে দেয়। SMM এর জন্য শিল্পের সর্বশেষ খবরের সাথে, আপনি আপনার

ফলোয়ারদের পর্যালোচনা করতে পারেন। প্রতিযোগীদের ও অডিয়েন্সদের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে আপনি আপনার পণ্য বা

এসএমএম কৌশলগুলোতে আরও পরিবর্তন আনতে পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর লক্ষ্যসমূহঃ

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

  • কমিউনিটি এন্গেজমেন্ট বৃদ্ধি
  • বিক্রয় বৃদ্ধি
  • গ্রাহক ধরে রাখা
  • ওয়েবসাইট ট্র্যাফিক বৃদ্ধি
  • গ্রাহক বৃদ্ধি
  • নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া পর্যালোচনা
  • প্রতিক্রিয়া অনুসন্ধান
  • প্রতিযোগীদের এবং প্রবণতা পর্যবেক্ষণ
  • ব্র্যান্ড সচেতনতা বৃদ্ধি
  • ভোক্তা চাহিদা গবেষণা।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কৌশলঃ

ভাল মানের সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কৌশল ব্যতীত সোশ্যাল নেটওয়ার্কগুলিতে কার্যকর বিপণন করা অসম্ভব। আপনার

ব্র্যান্ডের প্রচারের জন্য কীভাবে পণ্য ও সেবার বিপণন কৌশল তৈরি করতে হয় তার কিছু কৌশল সম্পর্কে জানবঃ

  • সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর জন্য আপনার লক্ষ্য নির্ধারণ করুন। আপনার ব্যবসায়ের সামগ্রিক লক্ষ্যের সাথে আপনার SMM এর লক্ষ্যগুলো তুলনা করুন এবং একত্র করুন।
  • আপনার ব্র্যান্ডের target audience বিশ্লেষণ করুন। আপনার গ্রাহকের হৃদয়ে পৌঁছানোর জন্য আপনাকে তাদের পছন্দ অপছন্দ জানতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনার টার্গেট কাস্টমারের সাথে কীভাবে কাজ করবেন তা শিখুন।
  • সঠিক সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম বাছাই করুন। সবসময় সবকিছু আপনার ব্যবসায়ের সাথে মানানসই নাও হতে পারে, তাই এমন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে পারেন যা আপনার টার্গেট কাস্টমার বেশি ব্যবহার করে এবং বর্তমান সময়ে খুবই জনপ্রিয়।
  • এমন একটি SMM কন্টেন্ট প্ল্যান তৈরি করুন যাতে প্রচারমূলক, বিনোদনমূলক এবং তথ্যমূলক বেশ কয়েক ধরণের কন্টেন্ট অন্তর্ভুক্ত থাকে।
  • আপনার সাফল্য পরিমাপ করতে Key Performance Indicator সংজ্ঞায়িত করুন। আপনার সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং প্রচেষ্টা কতোটুকু সফল হয়েছে সেটা পরিমাপ করুন। আপনার প্রাথমিক লক্ষ্যগুলির সাথে তাদের দৃঢ়ভাবে সম্পর্কযুক্ত হওয়া উচিত।

শেষকথাঃ 

আপনার নতুন পণ্য বা আসন্ন ইভেন্টগুলির সাথে গ্রাহকদের আপডেট রাখার অন্যতম সেরা এবং সহজ উপায় হল সোশ্যাল

মিডিয়া। যদি আপনার ব্যবসায় কোনও নতুন পণ্য বা ইভেন্ট সম্পর্কে একটি উত্তেজনাপূর্ণ বিশাল ঘোষণা করে তবে তা লোককে

আকর্ষণীয় করে তুলবে। আপনার ব্যবসায় বাড়ানোর বা অর্থ উপার্জনের অন্যতম একটি উপায় হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং।

এর মাধ্যমে আমরা ব্যবসা ছাড়া অন্যান্য উপায়ে আয় করতে পারেন, যেমনঃ ফ্রিলান্সিং, consultation ইত্যাদি।