Home » Freelancing » টুইটার মার্কেটিং কৌশল ও ব্যবসায়ের জন্য টুইটার মার্কেটিং টিপস
টুইটার মার্কেটিং

টুইটার মার্কেটিং কৌশল ও ব্যবসায়ের জন্য টুইটার মার্কেটিং টিপস

টুইটার একটি শক্তিশালী সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং টুলস এবং সার্চ ইঞ্জিন যেখানে সাধারণত আমরা যেকোনো বিষয়ে সাম্প্রতিক তথ্য

খুঁজে পেতে পারি। বর্তমান বিশ্বব্যাপী মাসে গড়ে 326 মিলিয়ন টুইটার ব্যবহারকারী রয়েছেন।

ব্যবসায়ে follower এবং বাড়াতে, ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস বাড়াতে, engagement বাড়াতে টুইটার অন্যতম সোশ্যাল প্লাটফর্ম। টুইটার

কন্টেন্ট distribution ও শেয়ার বাড়ানো অনেকটাই সহজ করে তোলে।

অর্গানিকভাবে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ গ্রাহকের কাছে পৌঁছানোর চিন্তা ভাবনা আকর্ষণীয় মনে হচ্ছে তাই

না? তবে আপনি কীভাবে নিশ্চিত করবেন যে আপনি সেই যে কন্টেন্ট তৈরি করছেন সেগুলো সবার কাছে পৌঁছে যাচ্ছে।

এই আর্টিকেলটিতে আমরা টুইটার, টুইটার মার্কেটিং, টুইটার মার্কেটিং strategy, ব্যবসায়ের জন্য টুইটার কীভাবে ব্যবহার করবেন

এবং টুইটারে আপনার মার্কেটিং উন্নত করতে আপনাকে কী কী টিপস এবং কৌশল প্রয়োগ করতে হবে এই বিষয়গুলো আলোচনা

করবো। জেনে নেওয়া যাক টুইটার ও টুইটার মার্কেটিং কি-

টুইটার :

টুইটার একটি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট এবং অনলাইন সংবাদ মাধ্যম। টুইটার একটি সামাজিক নেটওয়ার্কিং মাইক্রোব্লগিং

পরিষেবা যা নিবন্ধিত সদস্যদের টুইটার নামে স্বল্প পোস্ট সম্প্রচারের অনুমতি দেয়। টুইটার সদস্যরা একাধিক প্ল্যাটফর্ম এবং

ডিভাইস ব্যবহার করে টুইটগুলি সম্প্রচার করতে এবং অন্যান্য ব্যবহারকারীর টুইটগুলি অনুসরণ করতে পারে। ফেসবুক বা

লিংকডইনের মতই টুইটারে যে কাউকে অনুসরণ করতে পারেন। আপনি আপনার ফোন, ল্যাপটপ, ট্যাব বা ডেক্সটপ থেকে যে

কাউকে টুইট করতে পারেন।

টুইটার মার্কেটিং

টুইটার মার্কেটিংঃ

টুইটার আপনার ব্যবসা বৃদ্ধির জন্য দুর্দান্ত জায়গা। টুইটার মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে আমাদের ব্র্যান্ড সবার কাছে পৌঁছে দিতে পারি।

টুইটার মার্কেটিং বলতে আমরা বুঝি টুইটার ব্যবহারকারীদের কাছে আপনার বিজ্ঞাপন পৌঁছে দেওয়ার প্রক্রিয়া। অডিও, ভিডিও,

টেক্সট বা ইমেজের মাধ্যমে আপনি আপনার ব্র্যান্ডের প্রচার করতে পারেন। তবে টেক্সটের ক্ষেত্রে আপনি সর্বোচ্চ ১৪০ টি ওয়ার্ড

ব্যবহার করতে পারবেন। এটি অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি প্রচার মাধ্যম। টুইটারের মাধ্যমে খুব সহজেই বিভিন্ন দেশের মানুষের সাথে

যোগাযোগ করতে পারেন। রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, স্পোর্টসমান, অভিনেতা থেকে শুরু করে বিভিন্ন সেলিব্রেটি টুইটারে সংযুক্ত

থাকে এবং অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া থেকে টুইটারে বেশি একটিভ থাকে। আপনি সহজেই এখান থেকে আপনার টার্গেট কাস্টমার

পেয়ে যেতে পারেন এবং তাদের কাছে দ্রুত পৌঁছাতে পারেন।

টুইটার মার্কেটিং কৌশলঃ 

টুইটার মার্কেটিং strategy হচ্ছে এমন একটি কৌশল যার মাধ্যমে আপনি মার্কেটিংয়ে আশানুরুপ ভাবে সফল হতে পারেন। এই

ধরণের কৌশলের লক্ষ্য হচ্ছে নতুন follower বৃদ্ধি করা, engagement বাড়ানো, ব্র্যান্ড উন্নত করা এবং বিক্রয় বাড়ানো। টুইটার

মার্কেটিং strategy গুলো হচ্ছে-

১. আপনার অ্যাকাউন্টগুলো নিরীক্ষণ করুন।

প্রথম পদক্ষেপে সমস্ত বিদ্যমান অ্যাকাউন্টগুলো নথিভুক্ত করা উচিত এবং কোন সদস্য তাদের জন্য দায়বদ্ধ।

আপনার তালিকাটি একবার হয়ে গেলে, সমস্ত অ্যাকাউন্টের একটি পুঙ্খানুপুঙ্খ পর্যালোচনা করুন। তথ্য সংগ্রহ করুন যেমন:

  • এই অ্যাকাউন্টটি কতবার টুইট করে?
  • Engagement এর হার কত?
  • এর কত follower রয়েছে?

টুইটার অ্যানালিটিকস বা হুটসুয়েট রিপোর্টগুলি আপনাকে এই রেজাল্ট সরবরাহ করতে পারে।

আপনার বিদ্যমান অ্যাকাউন্টগুলোর জন্য ব্র্যান্ডের কমপ্লায়েন্স নিরীক্ষণ করা উচিত। টুইটারটি কি আপনার অন্যান্য সামাজিক

মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলির মতো কিনা আপনার বায়ো এবং প্রোফাইল ছবিটি ঠিক আছে কিনা ইত্যাদি পরীক্ষা করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এটি অনেক তথ্য, তবে এই প্রক্রিয়াটিকে সহজ করার জন্য আমরা একটি সোশ্যাল মিডিয়া অডিট পরিচালনা করার জন্য একটি

টেম্পলেট পেয়েছি।

একবার আপনি আপনার বিদ্যমান অ্যাকাউন্টগুলি অডিট করে নিলে আপনার টুইটারের কার্য সম্পাদনের জন্য একটি বেসলাইন

থাকবে। এটি আপনার কৌশলটির পরবর্তী পর্যায়ে অবহিত করতে সহায়তা করবে: লক্ষ্য নির্ধারণ করে।

২. লক্ষ্য স্থির করুন।

যেকোনো সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে স্পষ্ট পরিমাপযোগ্য সাফল্যকে লক্ষ্য করেই মার্কেটিং শুরু করা হয়। আপনি কী অর্জন

করার চেষ্টা করছেন তা যদি না বোঝেন তবে আপনার কৌশলটি আপনার ব্যবসায়ের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলছে কিনা তা

আপনি বোঝার উপায় নেই।

আপনি লক্ষ্য হতে হবে নির্দিষ্ট, পরিমাপযোগ্য, অর্জনযোগ্য, প্রাসঙ্গিক এবং নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে। সুতরাং এটা ভাইরাল হলো

কি হলো না তাতে কোনো কিছু যায় আসে না।

৩. প্রতিযোগিতা পর্যবেক্ষণ করুনঃ

আপনি যত ভাল কন্টেন্ট তৈরি করবেন আপনার অ্যাকাউন্টে আপনি তত বেশি প্রতিক্রিয়া এবং engagement পাবেন। আপনার

প্রতিযোগীরা তাদের অ্যাকাউন্টে কোন ধরনের কন্টেন্ট আপলোড করছে, কি ধরনের প্রতিক্রিয়া পাচ্ছে, তাদের অ্যাকাউন্টে

audience দের engagement কেমন এসব বিষয়ে পর্যালোচনা করুন। এই বিষয় গুলো বিবেচনা করে আপনিও আপনার উন্নতি

করুন। প্রতিযোগীতায় টিকে থাকতে হলে আপনাকে আপডেট হতে হবে এবং ভাল কিছু তৈরি করতে হবে যা সবার কাছে

গ্রহণযোগ্য।

সুতরাং আপনার প্রতিযোগীদের টুইটার অ্যাকাউন্টগুলি পর্যালোচনা করতে ভুলবেন না। তাদের সোশ্যাল মিডিয়াগুলো বিশ্লেষণ

করে দুর্বলতাগুলো খুঁজে বের করুন। এতে আপনি অনেক সচেতন হতে পারবেন।

৪. ভূমিকা বরাদ্দ করুন

আপনার অ্যাকাউন্টগুলি পর্যবেক্ষণ করা, অ্যাকাউন্টটি active রয়েছে কিনা এবং কেউ সরাসরি message ও reaction এর জবাব

দিচ্ছে তা নিশ্চিত করতে হবে। এই কাজের জন্য আপনার অ্যাকাউন্টে কাউকে এডিটর role দিতে পারেন। টুইটারের

কথোপকথনগুলি দ্রুত সরে যায়, সুতরাং আপনার নিয়মিতভাবে যদি আপনি চেক না করে থাকেন তাহলে আপনার অ্যাকাউন্টটি

ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

একটিভ অ্যাকাউন্টগুলো পর্যবেক্ষণের জন্য একাধিক সদস্যদের প্রয়োজন হতে পারে। নিশ্চিত করুন যে প্রত্যেকের তাদের

দায়িত্ব সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা আছে। যদি একাধিক টিমের সদস্য একই টুইটগুলোতে প্রতিক্রিয়া দেখানোর চেষ্টা করে এবং

অপ্রয়োজনীয় উত্তর সরবরাহ করে তবে সমস্যা হতে পারে। Hootsuite এর মতো একটি সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট টুল স্পষ্ট

ভূমিকা ও দায়িত্ব নির্ধারণের জন্য সহায়ক হতে পারে।

৫. গাইডলাইন তৈরি করুন

আপনার যোগাযোগগুলো পরিষ্কার এবং সামঞ্জস্য রাখতে আপনার একটি সামাজিক মিডিয়া স্টাইল গাইডের প্রয়োজন।

গাইডলাইনগুলি আপনাকে সোশ্যাল মিডিয়ায় দুর্ঘটনা ও ভুল প্রতিরোধে সহায়তা করে।

আপনার নির্দেশিকাগুলি আপনার সোশ্যাল মিডিয়া টিমের প্রত্যেকের সাথে ভাগ করা উচিত। তবে টুইটার সহ আপনি কীভাবে

সোশ্যাল অ্যাকাউন্টগুলি ব্যবহার করেন সে সম্পর্কেও নির্দিষ্ট হওয়া উচিত:

  • ব্র্যান্ডেড হ্যাশট্যাগগুলি এবং সেগুলি কীভাবে ব্যবহার করবেন
  • আপনি কোথায় এবং কোথায় ইমোজিস ব্যবহার করেন
  • কীভাবে লিঙ্কগুলি ফর্ম্যাট করবেন

টুইটারে সব ধরণের কথোপকথন হয়ে থাকে ভাল, খারাপ, উদ্ভট কথাও হয়। তাই আপনাকে যেকোনো কিছুর জন্য প্রস্তুত থাকতে

হবে। অ্যাকাউন্ট থাকলে সমালোচনা অনিবার্য। বিশেষত আপনার অ্যাকাউন্টটির engagement বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে কীভাবে

ট্রলগুলোতে প্রতিক্রিয়া জানানো যায় এবং কীভাবে পিআর সঙ্কটের ব্যবস্থাপনার পরিকল্পনা করা উচিত এই বিষয়ে ধারণা থাকতে

হবে।

৬. একটি কন্টেন্ট ক্যালেন্ডার তৈরি করুনঃ

আপনার সমস্ত চ্যানেলগুলিতে পোস্ট করা কন্টেন্ট তৈরি করা এবং আপনি কখন সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট আপলোড করবেন

তার সময়সূচী নির্ধারণ করার জন্য একটি সোশ্যাল মিডিয়া কন্টেন্ট ক্যালেন্ডার প্রয়োজন। এটি আপনাকে অগ্রীম সতর্কতা প্রদান

করে থাকে। পরিকল্পনার সময়োপযোগী বা আকর্ষণীয় বিষয়বস্তুর জন্য সুযোগগুলো দখল করতে সহায়তা করে। যেমন

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা আপনি কোন কিছু পোস্ট করতে চাইলেন কিন্তু আপনি ব্যস্ত সময় পার করছেন। আপনি সোশ্যাল মিডিয়া

কন্টেন্ট ক্যালেন্ডারের মাধ্যমে আগে কন্টেন্ট পোস্ট করে রেখে সময় মতো সেটা আপলোড করতে পারেন।

আপনার ক্যালেন্ডার তৈরি করার সময় যে বিষয়গুলো বিবেচনা করে ক্যালেন্ডার তৈরি করবেন-

  • আপনি কতবার পোস্ট করতে চান
  • পোস্ট করার সেরা সময়
  • কাদের পোস্ট অনুমোদন করা উচিত

ক্যালেন্ডারটি আপনার কন্টেন্টটি মূল্যায়ণ করতে এবং আপনি টুইটগুলো কীভাবে শেয়ার করছেন তা দেখতে সহায়তা করে।

৭. প্রভাব পরিমাপ করুনঃ

আপনার বিপণনের কৌশলটি একবার চলতে থাকলে নিয়মিত আপনার প্রচেষ্টার মূল্যায়ন করা এবং আপনি যে লক্ষ্য নির্ধারণ

করেছেন তার অগ্রগতি পরীক্ষা করতে হবে। অর্থবহ ডেটা সংগ্রহ করা আপনাকে আপনার বিপণনের প্রচেষ্টার মূল্য প্রদর্শন

করতে এবং অন্তর্দৃষ্টি সরবরাহ করতে সহায়তা করবে যা আপনাকে সময়ের সাথে সাথে আপনার কৌশলটিকে উন্নতি করতে

সহায়তা করবে।

টুইটার মার্কেটিং টিপসঃ

১. আপনার profile সম্পূর্ণ করুনঃ

পেশাদার টুইটার প্রোফাইল আপনাকে নতুন follower দের উপর প্রথম ভাল ধারণা তৈরি করতে সহায়তা করে। আপনার

প্রোফাইলের প্রতিটি উপাদান কীভাবে আপনার ব্র্যান্ডকে শক্তিশালী করতে এবং শ্রোতাদের অবহিত করতে সহায়তা করে তা

বিবেচনা করুন।

  • Handle: এটি আপনার অ্যাকাউন্টের নাম এবং দর্শক কীভাবে টুইটারে আপনাকে খুঁজে পেতে পারে। সাধারণত, আপনি চান আপনার হ্যান্ডলগুলি সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং আপনার কোম্পানির নাম অন্তর্ভুক্ত করুন।
  • প্রোফাইল ফটোঃ আপনার প্রোফাইল ছবি আপনি প্রেরিত প্রতিটি টুইটের পাশে প্রদর্শিত হবে। আপনার লোগো বা ওয়ার্ডমার্ক ব্যবহার করুন। লক্ষ্য রাখবেন ছবিটি যেন পরিষ্কার এবং প্রফেশনাল হয়।
  • হেডার ইমেজঃ আপনার শিরোনাম ইমেজটি আপনার প্রোফাইল পৃষ্ঠায় উপস্থিত হবে এবং আপনি আপনার প্রোফাইল ছবির চেয়ে এটি প্রায়শই আপডেট করতে চাইতে পারেন।
  • বায়ো যোগ করুন
  • ইউআরএল আপডেট করুন।
  • অবস্থানঃ অবস্থান সরবরাহ করা আপনার প্রোফাইলকে আরও ব্যক্তিগত এবং শ্রোতাদের কাছে বাস্তব মনে করে। Physical স্টোরফ্রন্টগুলো সহ ছোট ব্যবসায়ের জন্য এটি বিশেষত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ আপনি চান গ্রাহকরা আপনাকে অফলাইনে খুঁজে পেতে সক্ষম হন।

২. তালিকা সহ আপনার ফিডগুলি সঠিক করুন

৩. একটি টুইটার poll run করুন।

৪. অনুকূল পোস্ট বারের জন্য আপনার টুইটগুলি নির্ধারণ করুন।

৫.হ্যাশট্যাগ মাস্টার হন।

৬. ad campaign করুন।

৭. আপনার সাফল্য পরিমাপ করতে ইউটিএম প্যারামিটার ব্যবহার করুন।

শেষকথাঃ ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার বাড়ানো ও ইউজার এনগেজমেন্ট বাড়ানোর জন্য টুইটার একটি অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক

যোগাযোগ মাধ্যম। অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়াগুলোর পোস্ট থেকে টুইটারের পোস্টগুলো খুব তাড়াতাড়ি পুরোনো হয়ে যায়। তাই

খুব অল্প সময়ের মধ্যে ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস বাড়ানো ও ইউজার এনগেজমেন্ট বাড়াতে আপনাকে নতুন পরিকল্পনা নিয়ে আসতে

হবে এবং প্রতিদিন নতুন নতুন টুইট করতে হবে।